পেটের মেদ কমানোর উপায় জেনে নিন

পেটের মেদ কমানোর উপায় । পেটের মেদ অত্যন্ত অসস্তিকর একটি বিষয়। শরীর মোটা হলে চলা-ফেরায় কষ্ট হয় সঙ্গে নষ্ট হয় সৌন্দর্য। অনেকে আছেন খুব বেশি মোটা না কিন্তু পেটে অনেক মেদ কিংবা দেহের কিছু কিছু স্থানে মেদ জমায় খুবই অস্বস্তি বোধ করেন। কোনো ভালো পোশাক পড়লেও ভালো লাগে না। লম্বা হাতার জামা পড়ে বাহুর মেদ ঢাকা গেলেও পেটের মেদ কিন্তু এতো সহজে ঢাকা যায় না। অনেকে পেটের মেদ কমানোর জন্য খাওয়া দাওয়া একেবারে বাদ দিয়ে বসে থাকেন। এতে করে কিন্তু কোনো লাভই হচ্ছে না। বরং উল্টোটাই ঘটছে। সঠিকভাবে খাওয়া দাওয়া করেই কিন্তু পেটের মেদ দ্রুত কমিয়ে আনতে পারবেন। জানতে চান কীভাবে? চলুন শিখে নেয়া যাক দ্রুত পেটের মেদ কমাতে সহায়ক কিছু কার্যকরী কাজ।

পেটের মেদ কমানোর উপায়

পেটের মেদ কমানোর উপায়পেটের মেদ কমানোর উপায়

) ঘণ্টা পরপর খাবার খান

৩ বেলা খাবার খাওয়ার বিষয়টি পুরোপুরি ভুলে যান। প্রতি ৩ ঘণ্টা পরপর খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। অল্প পরিমাণে খাবেন যা আপনাকে ৩ ঘণ্টা এনার্জি সরবরাহ করবে। এতে করে আপনার পেটে মেদ জমার বিষয়টি ঘটবেই না। প্রতি ৩ ঘণ্টায় কিছু না কিছু খাচ্ছেন বলে অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার চাহিদা মিটে যাবে। এবং আপনি স্বাস্থ্যকর খাবারের দিকেই বেশি ঝুঁকবেন।

) কতো ক্যালরি গ্রহন করলেন তার হিসেব রাখুন

ধরুন আপনার বয়স, দেহের উচ্চতা এবং ওজন অনুযায়ী আপনার দিনে ২,৪৫০ ক্যালরি প্রয়োজন রয়েছে। তাহলে ঘুমের সময় বাদ দিয়ে বাকি সময় ৩ ঘণ্টা পরপর খেলে আপনার দিনে ৬ বার খাওয়া হয়। এক্ষেত্রে প্রতিবার আপনি ক্যালরি গ্রহন করবেন (২,৪৫০/৬= ৪০৮) ৪০৮ ক্যালরি। এভাবে ক্যালরি হিসেব করে খাওয়া আপনার পেটের মেদ দ্রুত কমাতে সহায়ক।

) ভালো ফ্যাট গ্রহন করুন, খারাপ ফ্যাট বাদ দিন

পেটের মেদের জন্য বিশেষভাবে দায়ী অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার যার মধ্যে ভালো ফ্যাটের তুলনায় খারাপ ফ্যাট বেশি। ডুবো তেলে ভাজা খাবার, যেসকল খাবারে রয়েছে ট্রান্স ফ্যাট এবং হাইড্রোজেনেট ফ্যাট সেসকল খাবার একেবারেই খাওয়া বন্ধ করে দিন। এরচাইতে খাবারে রাখুন এসেনশিয়াল ফ্যাটি অ্যাসিড, যেমন, ওমেগা৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। এতে পেটে মেদ জমবে না।

) প্রতি পাউন্ড ওজনের জন্য গ্রাম প্রোটিন খান

প্রোটিন আমাদের দেহ গঠনে অনেক বেশি সহায়ক এবং এটি পেটে অনেকটা সময় থাকে বলে অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার ঝামেলা থেকে আমাদের মুক্ত রাখে। আপনার ওজন যদি ১৪০ পাউন্ড হয় তাহলে আপনার দিনে ১৪০ গ্রাম প্রোটিন খাওয়া উচিত। আর ৬ বার খাবারের প্রতিবার (১৪০/৬= ২৩.৩৩) ২৩.৩৩ গ্রাম প্রোটিন খাওয়া উচিত।

) প্রাকৃতিক কার্বোহাইড্রেট খাবার খান, প্রসেসড নয়

প্রসেসড কার্বোহাইড্রেট খাবারে শুধুই খারাপ ফ্যাট থাকে কিন্তু অপরদিকে একেবারে
প্রাকৃতিক কার্বোহাইড্রেট দেহের জন্য অনেক বেশি ভালো। কার্বোহাইড্রেট বাদ দিয়ে
আপনি ওজন এবং পেটের মেদ কমাতে পারবেন না।

) প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন

সাথে সবসময় একটি পানির বোতল রাখুন এবং প্রতি ১৫ মিনিট পরপর অল্প করে পানি পান করুন। যদি আপনি পুরুষ হন তাহলে ৩.৫ লিটার এবং নারী হলে ২.৫ লিটার পানি এভাবে পান করার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এতে করে এই গরমের দিনে অস্বাস্থ্যকর ফ্যাটসমৃদ্ধ পানীয় পানের প্রতি আগ্রহ কমে যাবে। এবং পেটের মেদ বিদেয় করতে পারবেন।

৭) কাঁচা রসুনের কয়েক কোয়া

কাঁচা রসুনের কয়েক কোয়া সকাল বেলা চুষে খান। তারপরে লেবুর সরবত পান করুন। এই চিকিৎসাটি আপনার ওজন কমানোর জন্য সাহায্য করবে এবং শরীরের রক্ত প্রবাহ সহজ করবে।

৮) লেবুর সরবত

প্রতিদিনের সকালটা শুরু হোক লেবুর সরবত দিয়ে। এই পদ্ধতি পেটের মেদ কমানোর সবচেয়ে কার্যকরী ১টি উপায়। ১ গ্লাসে হালকা গরম পানি নিয়ে তাতে লেবু চিপে সরবত করে সঙ্গে একটু লবণ মিশিয়ে নিন। ইচ্ছে হলে একটু মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন। কিন্তু চিনি মিশাবেন না। প্রতিদিন সকালে পানীয়টি পান করুন। এই পানীয় আপনার বিপাক প্রক্রিয়া বাড়িয়ে পেটের মেদ কমায়।

৯)পেটের মেদ কমাতে ব্যায়াম:

লিফটের বদলে সিঁড়ি ব্যবহার করুন। যে জায়গাগুলোতে হেঁটে যাওয়া সম্ভব সেখানে রিকশায় না উঠার চেষ্টা করুন। হাঁটাই সবচেয়ে ভাল ব্যায়াম। এছাড়াও ছোট ছোট কিছু ব্যায়াম যদি নিয়মিত করতে পারেন।তবে এগুলো আপনাকে ফিট থাকতে সাহায্য করবে। যেমন ফ্লোর ক্রাঞ্চেস্, বার-পিস, সিঙ্গেল লেগ স্কোয়াট, পুশ আপস্, চেয়ার ডিপস্ ৩০ সেকেন্ড করে দিনে ৪-৫ বার করে দেখুন।

যে কোন স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্যের জানান দিতে https://totaltipsbd.com রয়েছে আপনাদের পাশে।জীবনকে সুস্থ্য, সুন্দর ও সুখময় করার জন্য নিয়মিত ভিজিট করুন আমাদের সাইটে। ধন্যবাদ ।

পেটের মেদ কমানোর উপায় পোষ্টটি নিচের শেয়ার বাটন থেকে শেয়ার করুন । নিয়মিত হেলথ টিপস পেতে যোগ দিন আমাদের ফেসবুক গ্রুপ এ অথবা লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজ

শেয়ার করুন

Add a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।